সোমবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২২
খবর
মতলবের নারায়নপুরে প্রাচীর দিয়ে যাতায়াতের রাস্তা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে প্রতিপক্ষরা।
2022-01-08 19:00:07
মোঃ রবিউল আলম

 
মতলব দক্ষিণ উপজেলার নারায়নপুর এলাকায় প্রাচীর দিয়ে চলাচলের রাস্তা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি  করেছেন ফরুক গংরা। এতে করে দুপক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। 
উপজেলার   নারায়ণপুর গ্রামের রবিউল্লাহ প্রধানীয়া বাড়ীতে  মৃত হাবিবউল্লাহ প্রধানের ছেলে ফারুক প্রধান ও মৃত মজুমদার প্রধানের ছেলে প্রবাসী রাজ্জাক
 প্রধানের স্ত্রী রহিমা বেগম চলাচলের পথে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে 
 
৮ জানুয়ারী সরজমিনে জানাযায় দির্ঘদিন যাবত বাড়ীর লোকদের আসা যাওয়ার চলাচলের রাস্তা ছিল বিল্লাল প্রধানের বাড়ীর উঠান দিয়ে । বাড়ীর মহিলাদের সুবিধার্থে ঘরের পিছন দিয়ে চলাচলের রাস্তা দিয়ে গত ৫ জানুয়ারী উঠানের রাস্তা বন্ধ করে দেন । পিছনের রাস্তার মাঝ খানে প্রাচির তৈরী করে বাড়ীর লোকজনের  চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেন ফারুক প্রধান । এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন পাশের বাড়ীর মৃত শফিউল্লাহ প্রধানের ছেলে মজিবুর রহমান ।
এ ঘটনায় এলাকার শাকিল, হান্নান, ও মেহেদীকে বিভিন্ন ভাবে হুমকী ধামকী দিয়ে আসছে ফারুক প্রধান ও মজিবুর রহমান । 
 
এ বিষয়ে ওই বাড়ীর একাধিক ব্যাক্তিরা বলেন বিল্লাল প্রধান তার উঠানের রাস্তা বন্ধ করে ঘরের পিছন দিয়ে রাস্তা করে দিয়েছেন বাড়ীর ফারুক প্রধান কিছু কুচক্রী লোকের কথায় ওই রাস্তায় প্রাচির তৈরী করে চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেন । এছাড়া এখানে মজিবের কোন জায়গা নেই সে কেন বাদী হয়ে অভিযোগ করেছে । 
 
এ বিষয়ে ফারুক প্রধান বলেন বাড়ীর উঠান দিয়ে যে রাস্তা ছিল তা আমাদের জায়গা ছিল । বিল্লাল প্রধান সেই রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছে ।  আমি কাউকে হুমকি দেইনি । 
 
এ বিষয়ে বিল্লাল প্রধান বলেন বাড়ীর মহিলাদের চলাচলের সুবিধার্থে ঘরের পিছন দিয়ে আমি রাস্তা দিয়েছি এবং বলেছি পিছনের রাস্তা আমি ঢালাই করে দেব । তারা তাদের জায়গায় দেয়াল তৈরী করে উল্টো আমার বিরোদ্ধে অভিযোগ করেছে । 
 
এ বিষয়ে খাদেরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মজ্ঞুর হোসেন রিপন মীর ও সদস্য ফজলুল করিম সেলিম বলেন এ বিষটি নিয়ে এলাকায় বেশ কয়েক বার বসা হয়েছে কোন পক্ষেই আমাদের কথা মানতে রাজী হয়নি ।
 
এ বিষয়ে  এসআই হাবিব বলেন অভিযোগ পেয়ে আমি ঘটনাস্হলে গিয়েছি আগামী সোমবার উভয়কে থানায় আসতে বলেছি ।